কোথায় ঘুরতে যাবেন? জেনে নিন ঠিকানা

টাইমস প্রতিবেদন: বাংলাদেশের

সাফারি পার্ক
সাফারি পার্ক
অন্যতম প্রাকৃতিক দৃষ্টি নন্দন জায়গাগুলো গাজীপুরের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। গাজীপুর টাইমসের সংবাদকর্মীদের সহায়তা ও সরকারি কিছু তথ্যের ভিত্তিতে পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল এসব আকর্ষনীয় স্থানের নাম-ঠিকানাসহ প্রতিবেদনটি।

বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্কঃ
ঢাকা থেকে ময়মনসিংহ অথবা শ্রীপুরগামী বাসে করে বাঘেরবাজার নেমে ০৩ কিঃ মিঃ পথ রিক্সায় অথবা পায়ে হেটে বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্কে যাওয়া যায়।

নক্ষত্রবাড়িঃ
শ্রীপুর উপজেলা সদর থেকে ১৫ কিঃ মিঃ দূরে নক্ষত্রবাড়ি রিসোর্ট সেন্টার। রাজাবাড়ি বাজার থেকে দক্ষিন পূর্ব দিকে অবস্থিত।

বাসরীঃ
রাজেন্দ্রপুর হয়ে ২০০ গজ উত্তর দিকে যেয়ে পশ্চিমে রাস্তার দক্ষিণ পাশে মির্জাপুরে এ অবস্থিত।

ন্যাশনাল পার্কঃ
ঢাকা থেকে বাসে জয়দেবপুর চৌরাস্তা হয়ে
ময়মনবিংহ বোডে ৮ কিলো দূরত্বে অবস্থিত। ট্রেনেও যাওয়া যায়।
গাজীপুর সদর ও শ্রীপুর উপজেলায় অবস্থিত পার্কটি জাতীয় উদ্যান হিসাবে স্বীকৃত।

নুহাস পল্লীঃ
ঢাকা থেকে সড়ক পথে ময়মনসিংহ রোডে হোতাপাড়া হয়ে পশ্চিম দিকে পিরুজালী ইউনিয়নে অবস্থিত।

ভাওয়াল (রাজপ্রাসাদ) রাজবাড়ীঃ
ঢাকা থেকে গাজীপুর গামী বাসে
শিববাড়ীতে নেমে রিক্সাযোগে রাজবাড়ী আসা যায়।

রাজ শস্মান ঘাটঃ
সদর উপজেলাধীন জয়দেবপুর মৌজায় অবস্থি। ভাওয়াল রাজ শ্মশানেশ্বরী রাজবাড়ী থেকে উত্তর-পূর্ব দিকে, রিক্সায় করে যেতে পারেন।

এছাড়া গাজীপুরের ভবানীপুর এলাকার রয়েছে বেসরকারী উদ্যান গ্রীনটেক রিসোর্ট ও কনভেনশন সেন্টারের। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে জৈনা বাজার এলাকায় অবস্থিত তেপান্তর পিকনিক ও স্যুটিং স্পট। বাঘের ববাজারের সাবাহ গার্ডেন উল্লেখযোগ্য। কাপাসিয়া থেকে কিশোরগঞ্জ যাওয়ার মেইন রাস্তার পাশে পালকি নামের বিনোদন কেন্দ্রটি দিন দিন বেশ জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। কালিয়াকৈরের আনসার একাডেমী, রাঙ্গামাটিসহ বেশ কিছু বিনোদন কেন্দ্র আছে। পূবাইলেও রয়েছে দৃষ্টি নন্দন কিছু শূটিং স্পট। ইচ্ছা হলে আজই সপরিবারে ঘুরে আসতে পারেন এসব মনোমুগ্ধকর জায়গাগুলো।