দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত গাজীপুরের বিনোদন কেন্দ্রগুলো

0

তাজুল ইসলাম ও আশরাফুল শেখ: দর্শনার্থীদের পদচারনায় মুখরিত গাজীপুরের বিভিন্ন উদ্যান ও রিসোর্টগুলো। গাজীপুরসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঈদের ছুটিতে নয়ানাভিরাম দৃশ্য দেখতে ছুটে আসছেন হাজারো মানুষ। ববঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কসহ জেলার প্রায় সব বিনোদ কেন্দ্রগুলো কানায় কানায় পূর্ণ। গাজীপুর টাইমসের প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যের আলোকে পাঠকদের জন্য প্রতিবেদনটি তুলে ধরা হল।

রোদ বৃষ্টি উপেক্ষা করে সবাই ছুটছেন প্রিয়জনদের সাথে একটু আনন্দঘন সময় কাটাতে। গত ২/৩ যাবত পরিবার পরিজন, বন্ধু বান্ধবসহ অনেকেই আসছেন গাজীপুরের বাঘের বাজারে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে। ঈদের দিন বিকাল থেকে দর্শনার্থীদের সারিবদ্ধ লাইন ছিল চোখে পড়ার মতো।

গতকাল কথা হয় সাফারি পার্কের কয়েক জন টিকেট মাস্টারের সাথে। তারা জানান, ঈদের দিন দুপুর থেকে দর্শনার্থীদের ভীড় বাড়তে থাকে। গত ২/৩ দিন যাবত দর্শনার্থীদের ভীড় সামাল দিতে মাঝে মধ্যেই হিমশিম খেতে হয় বলে জানান তাদের একজন বেলায়েত।

বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহ থেকে স্ত্রী ফিরোজা কে নিয়ে ঘুরতে এসেছেন কামাল হোসেন। তিনি বলেন, সকাল ৯টায় টিকিট কেটে ঢুকেছেন। বাঘ দেখার জন্য টাইগার পয়েন্টে এসে লাইনে দাঁড়িয়েছেন দেড় ঘন্টা যাবত। ভেতরে ঢুকতে আরও এক ঘন্টা সময় লাগবে বলে জানান তিনি।

জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের কর্মকর্তা কবির হোসেন বলেন, গত দু’বছর যাবত পার্কের উন্নয়নকাজ বন্ধ রয়েছে। দর্শণার্থীর সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলেছে। কিন্তু বেঞ্চ, শেড, শৌচাগার

ববঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে দদর্শনার্থীদের ভীড়

ববঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে দদর্শনার্থীদের ভীড়

শুরুতে যা ছিল এখনও তাই রয়েছে, উন্নয়ন হচ্ছেনা। রোদ, বৃষ্টিতে দুর্ভোগের মধ্যে দর্শণার্থীদের পরিদর্শন করতে হয় বলে জানান তিনি।

কাপাসিয়ার পালকি রিসোর্টেও ঈদের দিন বিকেল থেকে উপচে পড়া ভীড় লেগেই আছে। আমাদের কাপাসিয়া প্রতিনিধি জানান, সারাদিন ভীর কিছুটা কম থাকলেও বিকালে আসপাশের এলাকার সব মানুষ জড়ো হয় এই স্পটটিতে।

গাজীপুরের ভবানীপুর এলাকার বেসরকারী উদ্যান গ্রীনটেক রিসোর্ট ও কনভেনশন সেন্টার সূত্রে জানা যায়, ঈদের এক সপ্তাহ আগেই তাদের ৭০টি কক্ষের সবগুলো ভাড়া হয়ে গেছে।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে জৈনা বাজার এলাকার তেপান্তর পিকনিক ও স্যুটিং স্পটের মহা-ব্যবস্থাপক মোশারফ হোসেন মুঠোফোনে গাজীপুর টাইমসকে বলেন, ঈদের দিন থেকেই দর্শণার্থীরা ঘুরে বেড়াতে শুরু করেছেন।

ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান, কালিয়াকৈরর আনসার একাডেমি, রাঙ্গামাটি, পূবাইলের বিভিন্ন শূটিং স্পটসহ আশপাশের বিনোদন কেন্দ্রগুলো দর্শনার্থী দের সরব উপস্থিতিতে মুখরিত থাকতে দেখা গেছে। আশপাশের নদী, খাল, কালবার্ড ও ব্রিজগুলোতে ছিল উপচে পড়া ভীড়। এছাড়া বর্ষাকাল থাকায় নৌকা ভাড়া করে পিকনিকসহ নানা আয়োজনে গাজীপুরে চলছে ঈদ পরবর্তী উৎসব।

Share.

Comments are closed.